শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১১:৫০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
লালমনিরহাট বুড়িমারি সড়কে মৃত্যুর মিছিল, বেপরোয়া ট্রাকের নিয়ন্ত্রন নেই ট্রাফিক বিভাগের বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় জাতীয় বীমা দিবস পালিত বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় চোর চক্রের তিন সদস্য সহ গ্রেফতার চার গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে আগুন থামলেও থামেনি এতিমদের আত্বনাত ও আহাজারি ১০ লক্ষাধীক টাকা ক্ষতি সাধন জয়পুরহাটের জেলা সরকারি গণগ্রন্থাগারে নবাগত লাইব্রেরিয়ান যোগদান করেছেন ইসলামপুরে গণসংযোগ করেছে আবিদা সুলতানা যূথী ইসলামপুরে মিথ্যা মামলায় হয়রানি শিকার ভুক্ত ভুগি পরিবার শিক্ষকের হাতে শিক্ষক লাঞ্ছিত, তদন্তে কমিটি বেওয়ারিশ সেবা ফাউন্ডেশনের আয়োজনে অন্ধ হাফেজদের নিয়ে হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতা ২০২৪ এর রেজিষ্ট্রেশন চলছে নওগাঁয় ৫৫ বছর বয়সী কোহিনুরকে বাবার বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিল প্রকৌশলী মোয়াজ্জিম‌ হোসেন নওগাঁ দ্রুত বিচার পাওয়া জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে গ্রাম আদালত নওগাঁ গৌরশাহী মধ্যপাড়ায় আগুনে পুড়ে আলতাফ হোসেন নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে নব-নির্বাচিত এমপির সাথে সৌজন্য সাক্ষাত ও বোরো ধানবীজের স্কীম পরিদর্শন করছেন বিএডিসি বগুড়া জোনের উপ-পরিচালক নওগাঁ মহিলা আওয়ামী লীগের ৫৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত নওগাঁর আত্রাই নদী থেকে বালু তোলায় ফসলি জমি নদীগর্ভে বিলীন দেখার কেউ নেই নওগাঁ ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের যৌথ অভিযানে চার প্রতিষ্ঠানকে ৫ হাজার চারশত টাকা জরিমানা কালাইয়ে জাতীয় বীমা দিবস ২০২৪ পালিত নওগাঁর একুশে পরিষদের সন্মানিত উপদেষ্টা অধ্যাপক নুরুল হক আর নেই নওগাঁয় স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামী মোস্তাফিজুর রহমান নামে এক ব্যক্তির মৃত্যুদন্ড দিয়েছে আদালত নওগাঁ বাস্তবায়ন ইরিবোরো সমলয় চাষের প্রদর্শনী ও মাঠ দিবস পরিদর্শন করেন মতিউর রহমান

বিক্ষোভ সমাবেশে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে রুহুল আমিন গাজীকে নিঃশর্ত মুক্তি দিন

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৬ মে, ২০২১
  • ১৫৯ বার পঠিত


বিক্ষোভ সমাবেশে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ

অবিলম্বে রুহুল আমিন গাজীকে নিঃশর্ত মুক্তি দিন

 বুধবার ২৬ মে ২০২১ | প্রিন্ট সংস্করণ

অবিলম্বে রুহুল আমিন গাজীকে নিঃশর্ত মুক্তি দিন

বিএফইউজে’র সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন গাজী ও দৈনিক সংগ্রামের বার্তা সম্পাদক সা’দাত হোসাইনের নিঃশর্ত মুক্তি ও সকল সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক এসোসিয়েশন আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ বলেছেন, ভিন্ন মত দমনের অংশ হিসেবে সরকার ঠুনকো অজুহাতে অন্যায়ভাবে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সাবেক সভাপতি  ও দৈনিক সংগ্রামের চীফ রিপোর্টার রুহুল আমিন গাজী এবং  দৈনিক সংগ্রামের ভারপ্রাপ্ত বার্তা সম্পাদক সাদাত হুসাইনকে সাত মাস ধরে জেলে আটকে রাখা হয়েছে। দিন দিন তাদের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটছে। মানবিক দিক বিবেচনা করে সরকারের উচিত তাদের মুক্তি দেওয়া। কিন্তু সরকার সেটা না করে নানা অজুহাতে আটক রাখাকে দীর্ঘ করছে। অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি না দিলে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।
গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক এসোসিয়েশন (বিআরজেএ) আয়োজিত বিএফইউজের সাবেক সভাপতি ও দৈনিক সংগ্রামের চীফ রিপোর্টার রুহুল আমিন গাজী ও দৈনিক সংগ্রামের ভারপ্রাপ্ত বার্তা সম্পাদক সাদাত হুসাইনের নিঃশর্ত মুক্তি ও সকল সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন।
বিআরজেএ’র চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন ইবনে মঈন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য দেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক ও ডাকসুর সাবেক ভিপি মাহমুদুর রহমান মান্না। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএফইউজের সভাপতি এম আবদুল্লাহ, মহাসচিব নুরুল আমিন রোকন, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সভাপতি কাদের গণি চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, ডিইউজের সাবেক সভাপতি কবি আব্দুল হাই শিকদার। সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক নেতা মুদাব্বের হোসেন, আমিরুল ইসলাম কাগজী, সরদার ফরিদ আহমদ, শাহীন হাসনাত, আবু ইউসুফ, রাশেদুল হক, দিদারুল আলম, আলমগীর হোসেন, ডি এম আমিরুল ইসলাম অমর, ওয়াসিয়ার রহমান, এরশাদুর রহমান প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বিআরজেএ’র মহাসচিব মুহাম্মদ আবু হানিফ।
মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন ছাড়া মুক্তি মিলবে না। নিকট অতীতে প্রথম আলোর সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম তার জ¦লন্ত উদাহরণ। সম্মিলিত আন্দোলনের কারণে সরকার তাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়েছে। রুহুল আমিন গাজী ও সাদাত হুসাইনসহ আটক সাংবাদিকদের মুক্ত করতে হলে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। সরকারের জুলুম থেকে মুক্তি পেতে রাজপথে নামতে হবে। মুক্তির আন্দোলনকে হাইকোর্টের গেটে এমনকি প্রয়োজন হলে বিচারপতির দরজায় নিয়ে যেতে হবে। জনগণের দুর্দশা এজেন্ডা হিসাবে নিয়ে এ আন্দোলনে জনগণকে সম্পৃক্ত করতে হবে। সরকারের চলমান জুলুম থেকে রক্ষার প্রতিশ্রুতি নিয়ে আন্দোলন করলে জনগণ অবশ্যই তাদের অধিকারের ব্যাপারে সচেতন হবে।
তিনি বলেন, সাংবাদিকদের উপর যে নির্যাতন শুরু হয়েছে সরকারের সাথে ঐক্য করে মুক্তি মিলবে না। সাংবাদিকদের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে এক প্লাটফর্মে না আসলে নির্যাতন বন্ধ হবে না। চিরদিন অন্ধকার থাকবে না। সুদিন অবশ্যই ফিরবে। সেই সুদিনের সাক্ষী হতে মানুষের মুক্তির আন্দোলনে এখনই শরিক হওয়ার শ্রেষ্ঠ সময়। তিনি ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে সকল প্রকার অন্যায় অবিচার জুলুম নির্যাতন রুখে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, কোনো আন্দোলন বৃথা যায় না। যারা মনে করছেন এ আন্দোলন করে সরকারকে পরাজিত করা সম্ভব নয় তারা ভুল পথে হাঁটছেন। আন্দোলনকারীরা কখনো পরাজিত হন না। জয় আমাদের হবেই।
এম আব্দুল্লাহ বলেন, সাংবাদিকদের অধিকার আদায় আন্দোলনের আপোষহীন নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন গাজীকে অন্যায়ভাবে সাত মাস জেলখানায় বন্দী করে রাখা হয়েছে। সাংবাদিকদের ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নের আন্দোলন থেকে শুরু করে সকল প্রকার অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন সাহসী কণ্ঠস্বর। সরকার বিরোধী মতকে সহ্য করতে না পেরে তাকে ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় আটক করে এখন নানা অজুহাতে জামিন প্রলম্বিত করছে। তিনি বলেন, রুহুল আমিন গাজী ও সাদাত হুসাইনকে অবিলম্বে মুক্তি না দিলে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। আন্দোলন আর প্রেসক্লাবে থাকবে না। আন্দোলন প্রয়োজনে হাইকোর্টের গেটে নিয়ে যাওয়া হবে। অনতিবিলম্বে মুক্তি না দিলে আমরা বিচারপতির গেটে গিয়ে আন্দোলন করবো।
নুরুল আমিন রোকন বলেন, সাংবাদিকদের কাজ হলো দেশের স্বার্থে জনগণের স্বার্থে লেখালেখি করা। আমাদের অফিসে থাকার কথা ছিল। কিন্তু পেশার ওপর আঘাত আসায় আমরা আজ রাজপথে আন্দোলন করছি। রুহুল আমিন গাজী ও সাদাত হুসাইনের মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাজপথ ছাড়বো না। চলমান আন্দোলনের মাধ্যমে অবশ্যই সুদিন ফিরে আসবে।
কামাল উদ্দিন সবুজ বলেন, স্বাধীন সংবাদ মাধ্যম ও সাংবাদিকতা আজ ক্যান্সারে আক্রান্ত। এখন ক্যামোথেরাপি দিয়ে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে। এভাবে কতদিন বাঁচিয়ে রাখা যাবে সেটাই আজ বড় প্রশ্ন হয়ে দেখা দিয়েছে। সাংবাদিকদের কলম থামিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। আর সেই বড় কলমটি হলো সাংবাদিক নেতা রুহুল আমিন গাজী। তিনি বলেন, সাংবাদিকতা পেশাকে সম্মানের জায়গায় নিয়ে আসতে হলে দরকার ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন। আর সেই আন্দোলনের মাধ্যমে অবশ্যই রুহুল আমিন গাজী ও সাদাত হুসাইনরা মুক্ত হবে।
কাদের গণি চৌধুরী বলেন, বর্তমানে সাংবাদিকরা যে নির্মমতার শিকার তা গত ৫০ বছরে এমন নজির নেই। এ রকম নির্যাতন শুধু ফ্যাসিবাদী সরকারের আমলেই হয়ে থাকে। মিডিয়ার কণ্ঠরোধ করে ফ্যাসিবাদী শাসন বেশি দিন টিকিয়ে রাখা যাবে না। তিনি সরকারের উদ্দেশ্যে বলেন, সাংবাদিকদের উপর নির্যাতন বন্ধ করুন। অবিলম্বে আটক সাংবাদিক রুহুল আমিন গাজী ও সাদাত হুসাইনসহ সকল সাংবাদিকের মুক্তি দিন। অন্যথায় কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।
আব্দুল হাই শিকদার বলেন, বর্তমান সরকার স্বাধীনতার দুশমন। জনগণের দুশমন। স্বাধীনতার চেতনাকে পায়ের নীচে পিষ্ঠ করছে। দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার মাধ্যমে আপষহীন সাংবাদিক নেতা রুহুল আমিন গাজীকে মুক্ত করে মিথ্যা মামলার জবাব দেওয়া হবে।
শহীদুল ইসলাম বলেন, মিথ্যা মামলায় অন্যায়ভাবে সাংবাদিকদের প্রিয় নেতা রুহুল আমিন গাজীকে ৭ মাস ধরে জেলে আটকে রাখা হয়েছে। তিনি অবিলম্বে রুহুল আমিন গাজী ও সাদাত হুসাইনের নামে ভিত্তিহীন ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে মুক্তির দাবি জানান। একইসাথে সাংবাদিকদের উপর নির্যাতন বন্ধের আহ্বান জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By cinn24.com
themesbazar24752150