মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
গজল সম্রাট পঙ্কজ উদাস আর নাই : গাইবান্ধায় জাতীয় ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সমিতির মিলনমেলা গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে সূর্যমুখী গোবিন্দগঞ্জে বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে সূর্যমুখী রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক এর জন্য মনোহরদী থানার ওসি গণসংগীত শিল্পী আব্দুল লতিফের প্রয়াণ দিবস আজ নবীগঞ্জে জেল ফেরত প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের নওগাঁ রাণীনগর আগাছানাশক ওষুধ ছিটিয়ে দেড় বিঘা জমির ধান বিনষ্ট করেছে দুর্বৃত্তরা ভারতীয় চলচ্চিত্রের অভিনেত্রী দিব্যা ভারতীর জন্মদিন দেওয়ানগঞ্জে স্কুল শিক্ষার্থীদের ইউনিফর্ম পড়িয়ে নির্বাচনী প্রচারণা করলো চেয়ারম্যান প্রার্থী গাইবান্ধায় দুদকের অভিযানে পাসপোর্ট অফিসের তিন দালাল গ্রেফতার ৭ দিনের জেল কালাইয়ে মিলনের ঐতিহাসিক মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার তহবিল থেকে উপজেলার ৩৭ জন উপকার ভোগীদের মাঝে ৫০ হাজার টাকা বিতরণ করেন খাদ্যমন্ত্রীঃ দুপচাঁচিয়ায় হত্যা মামলার আসামি গ্রেফতার সুন্দরগঞ্জে বেসরকারি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান কল্যাণ সমিতির কমিটি গঠন লালমনিরহাটে তৃত্বীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠীর পাশে উপজেলা চেয়ারম্যান সুজন দেওয়ানগঞ্জে আতশবাজির শব্দে একজনের মৃত্যু নওগাঁর মহাদেবপুরে চকচকি হাফেজিয়া মাদ্রাসার দ্বিতীয়তল ভবন ভিত্তিপ্রস্তর শুভ উদ্বোধন নবীগঞ্জ উপজেলা পানিউমদা ভুমি অফিসের ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ, গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে সিপিবির সম্মেলন অনুষ্ঠিত সভাপতি নান্নু, সম্পাদক সাজু গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে জাতীয় ফসল জিরা মসলা চাষের ব্যাপক ভূমিকা রেখেছেন

সালিশ করতে গিয়ে কিশোরীকে বিয়ে করলেন বৃদ্ধ চেয়ারম্যান

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৭ জুন, ২০২১
  • ২৭০ বার পঠিত

প্রেমের টানে বাড়ি ছেড়েছিলেন পটুয়াখালীর বাউফলের কনকদিয়া ইউনিয়নের এক তরুণ ও কিশোরী। ঘটনাটির সুরাহায় ডাকা সালিশে গিয়ে কিশোরীকে দেখে পছন্দ হওয়ায় খোদ চেয়ারম্যানই বিয়ে করে ফেললেন। ইউপি নির্বাচনে গত ২১ জুন কনকদিয়া ইউনিয়নের দ্বিতীয়বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদারের (৬০) এমন কাণ্ডে অবাক হয়েছেন এলাকাবাসী। এ চেয়ারম্যান আবার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগেরও সভাপতি।

এদিকে সালিশে এমন বিচার দেখে কিশোরীর সঙ্গে পালানো তরুণ (২৫) আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। শুক্রবার রাত থেকে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি আছেন।

 জানা যায়, কনকদিয়া ইউনিয়নের নারায়ণপাশা গ্রামের এক তরুণের সঙ্গে একই ইউনিয়নের ওই কিশোরীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিলো দীর্ঘদিন ধরে। কিশোরী স্থানীয় একটি স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। কিন্তু প্রেমের সম্পর্ক মেনে নিতে পারেননি মেয়ের বাবা। প্রেমিক-প্রেমিকা গত তিন দিন আগে বাসা থেকে পালিয়ে গেলে কিশোরীর বাবা তাদেরকে পাশের বাড়ির এক আত্মীয়ের বাসা থেকে ধরে নিয়ে আসেন। সেই সঙ্গে বিষয়টি সমাধানের জন্য চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদারকে জানান।

শাহিন হাওলাদার শুক্রবার ইউনিয়ন পরিষদে সালিশ ডাকেন। বৈঠকে দুই পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। সেখানে ওই তরুণ কেন কিশোরীকে নিয়ে পালিয়ে গিয়েছিলো এর কোনও সদুত্তর দিতে পারেননি। তবে বৈঠকে কিশোরীকে দেখে পছন্দ হয়ে যাওয়ায় অভিভাবকের কাছে বিয়ের প্রস্তাব দেন চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদার। মেয়ের বাবা বিয়েতে সম্মতি প্রকাশ করলে ওইদিন বাদ জুমা চেয়ারম্যানের আয়লা বাজারের বাসায় কাজি ডেকে পাঁচ লাখ টাকা কাবিনে বিয়ে করেন।

তিনি বলেন, কনকদিয়া ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত কাজি স্থানীয় মুছা মাওলানার ছেলে বিবাহ সম্পন্ন করেছেন।

মেয়ে অষ্টম শ্রেণির  ছাত্রী হওয়ায়  বাল্যবিয়ে কি না জানতে চাইলে সাদেক হোসেন জানান, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে জন্মসনদ দাখিল করেছে। সেখানে তার বয়স ১৮ দেখানো হয়েছে। তা দেখেই কাবিন করিয়েছি। তাছাড়া সেখানে মেয়ে ও মেয়ের বাবা-চাচাসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত থাকায় আমরা বিস্তারিত যাচাই করিনি।

একই প্রশ্নের জবাবে চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদার জানান, সে তিন বছর আগে নবম শ্রেণির ছাত্রী ছিলো। বর্তমানে সে লেখাপড়া করে না। জন্মসনদ অনুযায়ী তার জন্ম তারিখ ২০০৩ সালের ১১ এপ্রিল।

তবে জন্ম তারিখের বিষয়ে আপত্তি জানিয়ে ওই কিশোরীর বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পরিমল চন্দ্র জানান, সে বর্তমানে অষ্টম শ্রেণির নিয়মিত শিক্ষার্থী। শুক্রবার চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদারের সঙ্গে ওই শিক্ষার্থীর বিয়ের ঘটনা কিছুক্ষণ আগে লোকমুখে শুনেছেন এবং তিনি অবাক হয়েছেন এতে।

কিশোরীর বাবা বলেন, সালিশে আমি বলেছি, আজকে যদি এর একটা ব্যবস্থা না হয় তাহলে আমি আর মেয়ে নেবো না (ওই ছেলের সঙ্গে দিয়ে দেবে)। এ কথার জবাবে চেয়ারম্যান বলেন, ‘তাহলে আপনার মেয়েকে আমার কাছে দিয়ে দেন, মেয়েকে আমি নিয়ে যাই’। রাগের মাথায় আমি বলেছি, আপনি নিয়ে যান। এতে যে এ ঘটনা ঘটবে আমি তা বুঝতে পারিনি।

বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আল মামুন জানান, লোকমুখে ঘটনা শুনেছি। তবে মেয়ের পক্ষ থেকে কেউ কোনও অভিযোগ করেনি। যদি বাল্যবিয়ের অভিযোগ পাওয়া যায়, তবে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বাউফল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জাকির হোসেন জানান, মেয়ের বয়স নির্ধারণ নিয়ে ইতোমধ্যে যাচাই-বাছাই শুরু করেছি। তার জন্মসনদ এবং স্কুলের সার্টিফিকেট সবকিছু আমরা সংগ্রহ করেছি।

ঘটনার আগে থেকেই চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদারের প্রথম স্ত্রী পটুয়াখালী অবস্থান করছেন। তবে এ বিষয়ে তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। চেয়ারম্যানের এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। ছেলে বিবাহিত।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By cinn24.com
themesbazar24752150